ওজন বাড়বে কিভাবে ওজন বাড়ানোর উপায়।

ওজন বাড়বে কিভাবে ওজন বৃদ্ধির উপায়। আমাদের প্রত্যেকের ধারণা সবাই শুধু ওজন কমাতেই চায় আর এজন্য যা করা দরকার তাই করেন। ধারণাটি একদম প্রত্যেকের মনে গেঁথে আছে। কিন্তু অনেকেই আছেন যাদের ওজন বাড়ানো প্রয়োজন, আবার কেউ বাড়াতে চান!

ওজন বাড়ানোর উপায়


আর ওজন বাড়ানোর জন্যও প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে নিয়ম করে ব্যায়াম ও খাদ্যাভ্যাসই পারে আমাদের শরীরের সঙ্গে ভারসাম্যপূর্ণ ওজন রাখতে। তাহলে দেখা যাক কেমন হওয়া উচিত ওজন বাড়াতে খাদ্যাভ্যাস-


১। ওজন বাড়াতে দিনে রাতে বার বার খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। শুধু ক্ষুধা লাগলে তবেই খাওয়া উচিত। খাবার কক্ষনও জোর করে নয়। এ ক্ষেত্রে প্রথমে ক্ষুধা বাড়াতে হবে। আর তার জন্য দরকার ব্যায়াম অথবা শারিরিক শ্রম। এমন কিছু ব্যায়াম আছে যেগুলো শরীরের পেশিকে খুব শক্তিশালি তৈরি করে। ইহার ফলে ওজন বাড়ায় এবং ক্ষুধার উদ্রেকও সৃষ্টি করে।

২। ওজন বাড়াতে দিনে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করার বিকল্প নাই। এই তালিকায় পানি, শরবত, দুধ ইত্যাদি রাখতে পারেন। তবে খাবার গ্রহনের সময় চেষ্টা কড়ে পানি পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে।নচেত এতে ক্ষুধা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এছাড়াও নিয়মিত সঠিক সময়ে ঘুমানোর চেষ্টা করতে হবে৷ এটা অত্যন্ত জরুরি।

৩। খাবার তালিকায় সর্বদা চেষ্টা করে শাক-সবজি, ফল, ভাত, মুরগি ও ডিম রাখুন। খাবারে বেশি শর্করা পেতে পাউরুটি, বিস্কুট, আলু, নুডলস, চিপস ও মিষ্টি জাতীয় ফল ইত্যাদি খাবারের তালিকায় রাখার চেষ্টা করতে হবে।ফ্যাট জাতিয় সয়াবিন, বাটার, পনির, ফুল ক্রিম দুধ, পুডিং, পায়েস, কাস্টার্ড, আইসক্রিম খেতে পারেন। এগুলো ভিটামিন যুক্ত খাবার যা শরীরের ওজন দ্রুত বাড়াতে সাহায্য করে। তবে এক্ষেত্রে জাংক ফুড থেকে বিরত থাকার চেস্টা করুন।
৪। উচ্চ মাত্রায় ক্যালরির জন্য হালুয়া, পুডিং, মিষ্টি, মাখন, জ্যাম, জেলি, কলা বা হলুদ ফল ইত্যাদি খেতে পারেন। এছাড়াও প্রোটিনের জন্য ডিম, মাছ, মাংস, দুধ, ডাল , বীজ ও বাদাম ইত্যাদি খেতে পারেন। এগুলো শরীরের ওজন বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। তবে প্রতিদিনের খাবার তালিকায় কিছুটা হলেও দই রাখার চেস্টা করতে হবে । কারণ এতে থাকা ব্যাকটেরিয়া হজমে সাহায্য করে ফলে দ্রুত ক্ষুধা লাগে।

ওজন বৃদ্ধির ব্যায়াম

তবে সুস্থ থাকতে খাবার গ্রহণের পাশাপাশি মানসিকভাবে চিন্তা মুক্ত থাকতে চেস্টা করতে হবে। সর্বদায় হাসি-খুশি ও প্রাণোজ্জ্বল থাকার চেস্টা করুন। এতে শরীর ও মন দুটোই থাকবে ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.